ফাইল ছবি

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে চালু হচ্ছে ‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি-সমাজকল্যাণ পদক’। ব্যক্তি, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে পাঁচটি পদক দেয়া হবে। প্রতি বছর ২রা জানুয়ারি ‘জাতীয় সমাজসেবা দিবস’ অনুষ্ঠানে এই পদক দেয়া হবে।

সম্প্রতি প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির বৈঠকে প্রস্তাবিত নীতিমালার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। 

সূত্র জানায়, প্রস্তাবিত নীতিমালার অনুমোদন মিলেছে। যতদ্রুত সম্ভব নীতিমালাটি প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে এ পদক প্রবর্তন করা হচ্ছে।     

নীতিমালাটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হলে গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় উত্থাপন করা হয়। পরে সভায় নীতিমালাটি অনুমোদন পায় বলে জানিয়েছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। 

সুবিধাবঞ্চিত অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সমন্বিত সম-উন্নয়ন, সামাজিক ন্যায়বিচার পুনঃএকত্রীকরণ এবং আর্থসামজিক উন্নয়নে সমাজিক সাম্য প্রতিষ্ঠাসহ পাঁচটি ক্ষেত্রে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে এ পদক দেওয়া হবে বলে প্রস্তাবিত নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে। 

১৮ ক্যারট মানের ২৫ গ্রাম সোনার পদক প্রদান মকরা হবে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে। এছাড়া পুরস্কারপ্রাপ্তদের দেওয়া হবে দুই লাখ টাকার চেক ও সম্মাননা সনদ। এর প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে ২২ লাখ ৫১ হাজার ৫০০ টাকা। এছাড়া মরণোত্তর পুরস্কারের ব্যবস্থাও রয়েছে নীতিমালায়।

 

/কে 

" /> ভোরের পাতা

‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি-সমাজকল্যাণ পদক’ চালু হচ্ছে জানুয়ারিতে

  • ১৯-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

ফাইল ছবি

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে চালু হচ্ছে ‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি-সমাজকল্যাণ পদক’। ব্যক্তি, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে পাঁচটি পদক দেয়া হবে। প্রতি বছর ২রা জানুয়ারি ‘জাতীয় সমাজসেবা দিবস’ অনুষ্ঠানে এই পদক দেয়া হবে।

সম্প্রতি প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির বৈঠকে প্রস্তাবিত নীতিমালার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। 

সূত্র জানায়, প্রস্তাবিত নীতিমালার অনুমোদন মিলেছে। যতদ্রুত সম্ভব নীতিমালাটি প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে এ পদক প্রবর্তন করা হচ্ছে।     

নীতিমালাটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হলে গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় উত্থাপন করা হয়। পরে সভায় নীতিমালাটি অনুমোদন পায় বলে জানিয়েছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। 

সুবিধাবঞ্চিত অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সমন্বিত সম-উন্নয়ন, সামাজিক ন্যায়বিচার পুনঃএকত্রীকরণ এবং আর্থসামজিক উন্নয়নে সমাজিক সাম্য প্রতিষ্ঠাসহ পাঁচটি ক্ষেত্রে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে এ পদক দেওয়া হবে বলে প্রস্তাবিত নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে। 

১৮ ক্যারট মানের ২৫ গ্রাম সোনার পদক প্রদান মকরা হবে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে। এছাড়া পুরস্কারপ্রাপ্তদের দেওয়া হবে দুই লাখ টাকার চেক ও সম্মাননা সনদ। এর প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে ২২ লাখ ৫১ হাজার ৫০০ টাকা। এছাড়া মরণোত্তর পুরস্কারের ব্যবস্থাও রয়েছে নীতিমালায়।

 

/কে 

Ads
Ads