সাকিব-মোস্তাফিজ টেস্ট খেলতে চায় না: পাপন

  • ২৪-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

দেশের বাইরে টেস্ট খেলতে গেলে বাংলাদেশের অসহায়ত্ব ফুটে উঠে প্রখরভাবে। যেমনটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও হয়েছে। ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে দুই টেস্টের দুটিতেই হার। তার মাঝে প্রথমটি তো ছিলো ইনিংস ব্যবধানে লজ্জার হার। টানা দুই টেস্ট হেরে এবার ওয়োনডে স্বাগতিকদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। নতুন মিশনে মাঠে নামার আগে টাইগারদের ব্যর্থতা নিয়ে মুখ খুললেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

 

পাপন বলেছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নাকি টেস্ট খেলতে চান না।

শুক্রবার (২১ জুলাই) গণমাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।

এ সময় তিনি বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমানের নাম উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, আমাদের দেশেও বেশ কিছু সিনিয়র ক্রিকেটার আছে, তাঁরাও টেস্ট খেলতে চাচ্ছে না। চাচ্ছে না বলতে, যেমন সাকিব টেস্ট খেলতে চায় না। মুস্তাফিজও টেস্ট খেলতে চায় না। বলে না যে খেলব না, কিন্তু চায় এড়িয়ে যেতে। অনেকে টেস্ট খেলতে চায় না, টেস্ট অনেক কঠিন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট সিরিজে বাজে পারফরম্যান্সের পেছনে প্রতিকূল ও কন্ডিশন বড় একটা কারণ বলে মনে করছেন নাজমুল হাসান। দেশের উইকেটগুলো বদলে দেওয়ার সেই পুরোনো প্রতিশ্রুতি আবার শোনা গেল তার কণ্ঠে।

“এইবার যাওয়ার আগেই ওরকম একটা পিচ বানানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু বানানোই যাচ্ছে না। দেখতে হবে, কি করলে ওরকম পিচ বানানো যায়। বাইরে থেকে মাটি আনা যায় কিনা, সেটি নিয়ে আলোচনা করছি। নতুন যে কিউরেটর এনেছি, তাদের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে।”

“আমাদের ওই ধরনের পিচ করা লাগবে, উপায় নেই। কারণ গত চার বছরে দেশে আর উপমহাদেশেই বেশি খেলেছি। এখন বাইরে যাওয়া লাগবে। ঘরোয়া ক্রিকেটেও এরকম পিচ করতে হবে।”

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর চলাকালীন রুবেল হোসেনের টেস্ট খেলতে অনাগ্রহের কথা সংবাদমাধ্যমে বের হয়েছিল।

বিসিবি সভাপতির ভাষ্য, রুবেলের কাছে নাকি টেস্ট ক্রিকেট এখন ভীষণ কঠিন, রুবেল অনেক অভিজ্ঞ। অনেক দিন সার্ভিস দিয়ে আসছে। হতে পারে ওর জন্য টেস্ট কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তরুণদের থেকে নতুন মুখ আনতে হবে। এ ছাড়া কোনো উপায় নেই।

তিনি বলেন, টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির জন্য আমাদের নতুন দল গড়তে হবে। হয়ত তিন-চারজন কমন থাকবে। সব দেশ এখন তাই করে। সবারই স্পেশালিস্ট টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট ক্রিকেটার আছে।

বিসিবি সভাপতি আরও বলেন, ওয়ানডেতে বাংলাদেশ মোটামুটি এক জায়গায় এসেছে। এর কারণ উপমহাদেশে ওরা ওয়ানডে ভালো খেলে। আসলে বাইরে সেরকম সুযোগ হয় না। ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ায়, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজে সফর হয় না। এবার একেবারে নতুন তাদের জন্যে। অনেকের খেলার অভিজ্ঞতা নেই। তবে এত খারাপ হওয়ার কথা ছিল না। যেই উইকেটে খেলা হয়েছে আমাদের ওরা অভ্যস্ত না। এখানে চেষ্টা করেছিলাম সেটা হয়নি। কোচও নতুন, শুরুতে হয়তো পরিচিত হওয়া ছাড়া আরও কিছু করার থাকে না।

উল্লেখ্য, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের দুটিতেই বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। অ্যান্টিগায় প্রথম টেস্টে ইনিংস ও ২১৯ রানে হারের পর জ্যামাইকায় পরের টেস্টে ১৬৬ রানে হার। এর মধ্যে অ্যান্টিগায় প্রথম ইনিংসে মাত্র ৪৩ রানে গুটিয়ে গিয়ে নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ।

Ads
Ads