বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য চুরির চেষ্টা করছে যে ৪ দেশের হ্যাকাররা!

  • ২-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য চুরির চেষ্টা করছে ৪টি দেশের হ্যাকাররা। এ যেন মরার উপর খাড়ার ঘা। ২০১৬ সালের রিজার্ভ চুরির এখনও অবধি কোনো কুল কিনারা হয়নি। তার উপর আবারও হ্যাকারদের কবলে পড়ার আশংকা। এ কারণে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে সতর্কতামূলক একটি চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানালেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

সম্প্রতি অর্থমন্ত্রীকে দেয়া ওই চিঠিতে মোস্তাফা জব্বার জানান, ‘দেশের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যসমূহের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল ইতোমধ্যে একটি সাইবার নিরাপত্তা দল গঠন করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য সুরক্ষার জন্য একটি বিশেষ সাইবার সেন্সরও তৈরি করা হয়েছে। সেই সেন্সর থেকে ইতোমধ্যে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য সেন্সরটি দিয়েছে। সেন্সরে ধরা পড়েছে কয়েকজন সাইবার অপরাধী কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কম্পিউটারে ম্যালওয়্যার তৈরির চেষ্টা করছে যা কম্পিউটার ব্যবহারকারীর ইউজার আইডেন্টিটি, পাসওয়ার্ডসহ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সাইবার অপরাধীদের কাছে পৌঁছে দিতে পারে।’

বিশেষ সাইবার সেন্সর যে চারটি দেশের হ্যাকারদের চিহ্নিত করেছে সে দেশগুলো হলো- কাজাখাস্তান, রোমানিয়া, জাপান ও চীন। এই ৪ দেশের কয়েকজন সাইবার অপরাধী এই অপরাধমূলক কার্যক্রম চালাচ্ছে বলে মোস্তাফা জব্বার তার চিঠিতে উল্লেখ করেছেন।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংককে এ ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে। যে কোনো ধরণের বড় দুর্ঘটনা এড়াতে  বাংলাদেশ ব্যাংকের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ সাইবার নিরাপত্তা দল জরুরী হয়ে পড়েছে জানান টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী।

বর্তমানে বিশ্বজুড়ে চলছে হ্যাকিং আতংক। মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার গায়েব হয়ে যাচ্ছে হ্যাকারদের একটি ক্লিকে। অতীতে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনাটিও এভাবেই ঘটেছে বলে দাবি করেছেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে কিছু সাইবার অপরাধী বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের ১০১ মিলিয়ন ডলার হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে চুরি করে শ্রীলঙ্কা ও ফিলিপাইনের বিভিন্ন ভুয়া অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করে। এর মাঝে শ্রীলঙ্কা থেকে মাত্র ২০ মিলিয়ন ডলার উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

Ads
Ads