আরেকটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ার অনুমতি পাচ্ছে সিটি গ্রুপ

  • ৭-জানুয়ারী-২০১৯ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

সিটি গ্রুপ আরও একটি বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য অনুমতি পাচ্ছে। এ গ্রুপের মালিকানাধীন হোসেন্দী অর্থনৈতিক অঞ্চলকে আজ প্রাক-যোগ্যতা সনদ দিচ্ছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নের ১০৮ একর জমিতে এ অঞ্চল গড়ে তোলা হবে। এটি উন্নয়নে প্রাথমিকভাবে ১০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে সিটি গ্রুপ। এখন প্রাথমিক সনদ দেওয়ার পর সম্ভাব্যতা যাচাই শেষে চূড়ান্ত সনদ দেওয়া হবে। এর আগে এ গ্রুপের 'সিটি অর্থনৈতিক অঞ্চল' অনুমোদন পায়।

বেসরকারি ইজেড স্থাপনে একের পর এক বিনিয়োগে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন গ্রুপ অব কোম্পানি। এরই মধ্যে ১৯ বেসরকারি ইজেডকে প্রাক-যোগ্যতা সনদ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৭টি ইজেড চূড়ান্ত সনদ পেয়েছে। শিগগির আরও কয়েকটি ইজেড প্রাক-যোগ্যতা সনদ পাচ্ছে বলে জানা গেছে। 

গত বছর বেজার গভর্নিং বোর্ডের ষষ্ঠ সভায় শর্তসাপেক্ষে এ অর্থনৈতিক অঞ্চল (ইজেড) স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়। এর পর কোন মৌজা থেকে কী পরিমাণ জমি অধিগ্রহণ করা হবে গত মাসে সেটি ঘোষণা করে সরকার। গেজেটের তথ্য অনুযায়ী, মুন্সীগঞ্জের হোসেন্দী ইউনিয়নের চর বেতাকী, ভবানীপুর, রঘুর চর, হোসেন্দী মৌজায় খান ব্রাদার্স শিপ বিল্ডিং, বাংলাদেশ কেশো নাট প্রসেসিং ইন্ডাস্ট্রিজ ও বাংলাদেশ শিপ বিল্ডিং হেভি ইন্ডাস্ট্রিজের মালিকানাধীন ১০৮ একর জমিতে এ ইজেড স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রজ্ঞাপন জারির পর কোম্পানি তিনটির জমি ইজেডের নামে হস্তান্তর করা হবে। হোসেন্দী ইজেডের চেয়ারম্যান শম্পা রহমান। তিনি সিটি গ্রুপের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমানের মেয়ে। 

হোসেন্দী ইজেডের উদ্যোক্তাদের শিপ বিল্ডিং ইন্ডাস্ট্রিজসহ বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের অভিজ্ঞতা রয়েছে। এ অঞ্চলে সিমেন্ট, সল্ট ও কেমিক্যালস, শিপ বিল্ডিং এবং সিরামিক পণ্যসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান উদ্যোক্তারা। এ লক্ষ্যে টেকসই ও পরিবেশবান্ধব শিল্পকারখানা গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। 

হোসেন্দী ইজেডের চেয়ারম্যান শম্পা রহমান জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাছাকছি এ অঞ্চল স্থাপন করা হবে। শুরুতে ১০৮ একর জমিতে ইজেড হলেও ভবিষ্যতে ১৫০ একরে উন্নীত করা হবে। এখানে স্থানীয় ১০ শিল্প ইউনিট স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। পাশাপাশি ১০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এসব শিল্প প্রতিষ্ঠানে প্রায় ১৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। তিনি জানান, এই ইজেডের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকায় স্থানীয় উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের প্রস্তাব আছে। এ ছাড়া চীন, থাইল্যান্ড ও জাপানের বিভিন্ন উদ্যোক্তাও বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। 

অঞ্চলটি মেঘনা নদীর তীরে ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে থাকায় নৌপথ ও সড়কপথে যোগাযোগের ব্যবস্থা রয়েছে। রাজধানী থেকে মাত্র ২৫ কিলোমিটার এবং চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এ ইজেড। এখানে বেজার অনুমোদিত মাস্টারপ্লান অনুযায়ী পরিকল্পিত ভূমি উন্নয়ন ও শিল্প স্থাপন করা হবে। এতে অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা, পানি শোধনাগার, পয়ঃনিস্কাশন ও বর্জ্য শোধনাগার স্থাপন করা হবে। 

সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা জানান, হোসেন্দী ইজেড দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের জন্য উন্নয়ন করা হবে। এই ইজেডে বিভিন্ন দেশের উদ্যোক্তারা নানা শিল্পে বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছেন। তিনি বলেন, এখানে শিল্প স্থাপনে পুরোপুরি বিনিয়োগ করবে সিটি গ্রুপ। চূড়ান্ত সনদ পাওয়ার পরপরই উন্নয়নের পাশাপাশি শিল্প স্থাপন শুরু হবে। এরই মধ্যে এখানে প্রায় ১ হাজার ৮৫০ কোটি টাকা শিল্পে বিনিয়োগ হয়েছে। এই বিনিয়োগে সিটি ভোজ্যতেল কারখানা, সিটি রাইস মিল ও সিটি ডাল মিল স্থাপন করা হয়েছে।

এর আগে ২০১৭ সালের মে মাসে সিটি গ্রুপকে প্রাক-যোগ্যতা সনদ দেয় বেজা। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের রূপসীতে ৭৮ একর জমিতে এ অঞ্চল স্থাপন করা হচ্ছে। এতে প্রাথমিক বিনিয়োগ হচ্ছে দেড় হাজার কোটি টাকা।

Ads
Ads