বাঁচতে পারবে কি ছাত্রলীগ নেতা রানা!

  • ৩০-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা অনলাইন ::

যার তারুণ্যদীপ্ত ‘জয় বাংলা’ শ্লোগানে কিছুদিন আগেও মুখরিত হতো ছাত্রলীগের মিছিল, সেই তাওহিদুজ্জামান রানা ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে এখন অর্থাভাবে চিকিৎসা থেমে যাওয়ায় মাত্র ২০ লাখ টাকার অভাবে তার জীবনপ্রদীপ নিভে যাওয়ার পথে। তিনি এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়েছেন।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা উপজেলার মহেড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতা তাওহিদুজ্জামান রানা মরণব্যাধি ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে এখন মৃত্যুর প্রহর গুনছেন। ।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইল শাহজাহাল (র.) মেডিকেল ইনস্টিটিউশন থেকে মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট পাস করা তাওহিদুজ্জামান রানা উপজেলার মহেড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি উপজেলার মহেড়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে। রানার বড় দুই বোন রয়েছে। এক বোন বিয়ে দিয়েছেন। সংসারে রয়েছেন রানা, বড় এক বোন ও মা-বাবা। বাবা আবুল হোসেন পেশায় একজন পশু চিকিৎসক। গ্রামে গ্রামে গিয়ে পশু চিকিৎসা করে যা আয় করেন তা দিয়েই সংসার চালাতে হয়। এর মধ্যে ছেলের গলায় ক্যান্সার ধরা পড়ায় আয়-রোজগার বন্ধ করে ছেলের সঙ্গে ভারতের হায়দরাবাদে রয়েছেন।

একদিকে সংসার চালানো এবং অপরদিকে ছেলের চিকিৎসা সব মিলিয়ে রানার পরিবারটি এখন হতাশায় দিন কাটাচ্ছে। তাওহিদুজ্জামান রানা বর্তমানে গলায় ও ঘাড়ে ক্যানসার (ননহসকিন লিস্ফোমা) আক্রান্ত হয়ে ভারতের হায়দরাবাদের যশোদা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গেছে, ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী তাওহিদু্জ্জামান রানা গত তিন মাস আগে গলায় ব্যাথা হলে প্রথমে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পরীক্ষা করা হয়। সেখানে তারা সঠিক রোগ নির্ণয় করতে ব্যর্থ হলে ঢাকায় পরীক্ষা করালে তার গলায় ও ঘাড়ে ক্যানসার হয়েছে বলে ধরা পড়ে। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে ভারতে গিয়ে চিকিৎসা শুরু করেছেন। সেখানে তার ব্রনমেরু পরীক্ষা করা হয়েছে। তাকে এখন ক্যামু থ্যারাপি দিতে হবে। প্রতিটি ক্যামুতে খরচ হবে দুই লাখ টাকারও বেশি। চিকিৎসায় খচর হবে ২০ লাখ টাকা। এই বিপুল অংকের টাকার যোগান দেয়া রানার পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয় বলে তার পরিবার জানিয়েছেন।

রানার মা  রেখা বেগম ও বাবা আবুল হোসেন তার একমাত্র ছেলে রানার চিকিৎসার সহায়তায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ প্রতিটি নেতাকর্মী আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ,  সহযোগী সংগঠনের নেতার্মীদের সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। রানার মায়ের সঙ্গে মোবাইল ফোনে (01728669625) যোগাযোগ করে নিম্নের ঠিকানায় সহায়তা পাঠাতে পারবেন।

রানাকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা- বিকাশ এজেন্ট ০১৭৭৯৬২১৫৫৭। রেখা বেগম (রানার মা), হিসাব নম্বর ০২০০০০৭৮২০৯৩৯, আগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, মহেড়া ব্রাঞ্চ, মির্জাপুর, টাঙ্গাইল। রানার ইমু নম্বর ৮৮০১৭৫৪০৪০০৫৪, ভারতের যোগাযোগ নম্বর: +৯১৮৪২০৬১১২৫০, যশোদা হসপিটাল হায়দরাবাদ।

 

অনলাইন/কে 

Ads
Ads