নির্বাচনে সব দল আসায় প্রধানমন্ত্রীর ধন্যবাদ

  • ১১-Nov-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ সব দলের অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়ায় সব দলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানই সরকারের লক্ষ্য। সব দল অংশ নিলে নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। জনগণ যাদের ভোট দেবে তারাই বিজয়ী হবে।

রোববার (১১ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সংসদীয় বোর্ডের সভার শুরুতে দেওয়া বক্তব্যে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চাই নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হোক। নির্বাচনে জনগণ যাদের ভোট দেবে, তারাই জয়লাভ করবে। আমরা সবাই মিলে নির্বাচন করবো। সবাই যেহেতু নির্বাচন করবে, সেজন্য সবাইকে ধন্যবাদ ও স্বাগত জানাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘নির্বাচনটা কীভাবে করবো এবং নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে হয়—সে আলোচনা হয়েছে। অনেকে অনেক দাবি দাওয়া করেছিল। বেশ কিছু আমরা মেনে নিই। নির্বাচনটা যেন সবার জন্য অংশগ্রহণমূলক হতে পারে, সবাই যেন নির্বাচন করার সুযোগ পায়, সেদিকে আমরা দৃষ্টি রাখবো। সে কথা আমরা বলে দিয়েছি।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘সবাইকে স্বাগত জানাই যে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে সবাই মতামত দিয়েছেন, যা গণতান্ত্রিক ধারাকে আরও শক্তিশালী করবে। অর্থনৈতিক গতিও ত্বরান্বিত করবে, এটা আমি আশা করি।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘আমরা যে উন্নয়নটা করেছি, তার ধারা যেন অব্যাহত থাকে— এটা আমরা চাই। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই গতিটা যেন কোনও মতেই থেমে না যায়। বাংলাদেশকে আমরা যেন উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারি, সেদিকে দৃষ্টি রেখেই আমরা আলাপ-আলোচনা করি।’

দলীয় মনোনয়ন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘নমিনেশন পেপার দিয়েছি। চেষ্টা করবো উপযুক্ত প্রার্থীকে নমিনেশন দিতে।’

মনোনয়ন ফরম বিক্রির মধ্যেই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সভা বসেছে। তবে এই সভায় প্রার্থীর মনোনয়ন নির্ধারিত হবে না বলে সকালেই এক অনুষ্ঠানে জানান শেখ হাসিনা।

দলীয় প্রার্থী ঠিক করতে পরে আরও সভা হবে বলে জানান তিনি।

শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের সংদসীয় বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে ওবায়দুল কাদের, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও রশিদুল আলম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

অসুস্থতার জন্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও ড. আলাউদ্দীন সভায় উপস্থিত হতে পারেননি। এছাড়া কাজী জাফরুল্লাহ বিদেশে রয়েছেন।

/ই

Ads
Ads