লজ্জার হার থেকে বাঁচাতে পারলো না বাংলাদেশ

  • ৯-Sep-২০১৯ ০৫:৩৪ অপরাহ্ন
Ads

:: স্পোর্টস ডেস্ক ::

একটি দল চরম লজ্জার মুখোমুখি। এমন সময়ে আম্পায়ারের এমন ভুলও কি মেনে নেয়া যায়! তাইজুল ইসলামকে করা রশিদ খানের বলটি ডিফেন্স করলেন ব্যাটসম্যান। ব্যাটে লেগে প্যাডে গেলো বল। কিন্তু আম্পায়ার আঙুল তুলে দিলেন। রিভিউ বাকি ছিল না বাংলাদেশের। ফলে দুর্ভাগ্যই বরণ করতে হলো টাইগারদের। বিদায় হলো ৯ম উইকেটের।

হার এমনিতেই অবধারিত ছিল যেন। বৃষ্টি সেটাকে বিলম্বিতই করলো শুধু। শেষ বিকেলে ১৮.৩ ওভার খেলার সুযোগ করে দিলো বৃষ্টি। তাতেও লজ্জার হার থেকে নিজেদের বাঁচাতে পারলো না বাংলাদেশ। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে সৌম্য সরকার আউট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই যেন লজ্জায় অধোবদন হলো বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের কাছে হেরে গেলো ২২৪ রানে।

সোমবারও বন্দরনগরীর আকাশ ভেঙে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। ফলে নির্ধারিত সময়ে পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু হয়নি। গোটা সকাল চলে যায় বৃষ্টির পেটে। অবশেষে দুপুর ১টায় গড়ায় খেলা। তবে ১৩ বল হতেই আবার হানা দেয় বৃষ্টি। এতে খেলা বন্ধ হয়ে যায়।

পরে দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে ৪টা ২০ মিনিটে ফের খেলা শুরু হয়। তবে মাঠে নেমেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ। প্রথম বলেই কট বিহাইন্ড হয়ে ফেরেন অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান। জহির খানের বল পিচ করে অফ স্টাম্পের বাইরে দিয়ে বের হয়ে যাচ্ছিল। তাতে খোঁচা দিতে গিয়ে আউট হন তিনি। ফেরার আগে করেন ৪ চারে লড়াকু ৪৪ রান।

বৃষ্টির কারণেই নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হয় চতুর্থ দিনের খেলা। ফলে শেষ দিন প্রায় আধা ঘণ্টা আগে খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল। ৬ উইকেটে ১৩৬ রান নিয়ে দিন শেষ করেছিল বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ৩৯ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে ছিলেন। সঙ্গে থাকা সৌম্য সরকার রানের খাতায় খুলতে পারেননি। তবে তারা নতুন দিনের শুরুতে খেলার গোড়াপত্তন করতে পারেননি।

নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। দলের হয়ে ৮৭ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন ইব্রাহিম জাদরান। ফলে ৩৯৭ রানের লিড পান সফরকারীরা। এতে একমাত্র টেস্টের নাটাই হাতে নেন তারা।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে স্বপ্নের মতো ব্যাটিং করে আফগানিস্তান। রহমত শাহর ইতিহাস গড়া সেঞ্চুরিতে তোলে দলীয় সর্বোচ্চ ৩৪২ রান। জবাবে প্রথম ইনিংসে হতশ্রী পারফরম্যান্স প্রদর্শন করে বাংলাদেশ। ২০৫ রানে গুটিয়ে যায় তারা।

 

/কে 

Ads
Ads