মিয়ানমারে সামরিক কলেজসহ ৫ জায়গায় হামলা, নিহত ১৫

  • ১৬-Aug-২০১৯ ০৫:২৩ অপরাহ্ন
Ads

:: সীমানা পেরিয়ে ডেস্ক ::

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলে সামরিক বাহিনীর একটি কলেজসহ পাঁচটি লক্ষ্যে হামলা চালিয়েছে স্থানীয় বিদ্রোহীরা। বৃহস্পতিবার বিভিন্ন সরকারি স্থাপনায় সমন্বিত এ হামলায় ১৫ জন নিহত হয়েছেন, যাদের অধিকাংশই বর্মি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্রের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বিদ্রোহীরা পুলিশের একটি দপ্তরও পুড়িয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শান রাজ্যের পায়িন উ লউয়িন শহরে ডিফেন্স সার্ভিস টেকনোলজিক্যাল একাডেমিতে ও অপর চারটি জায়গায় হামলার দায় স্বীকার করেছে ওই অঞ্চলে তৎপর বিদ্রোহী সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর জোট নর্দান অ্যালায়েন্স। 

স্থানীয় চার সশস্ত্র বিদ্রোহী দলের জোট নর্দার্ন অ্যালায়েন্স বলেছে, আগামী দিনগুলোতে এরকম আরও হামলার মুখোমুখি হতে হবে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে। 

সেনাবাহিনীর মুখপাত্র তুন তুন নাই জানিয়েছেন, নাউং চো শহরে গোকটেক ভায়াডাক্ট রেলওয়ে সেতুর কাছে সৈন্যরা বিদ্রোহীদের সঙ্গে লড়াই করছে। ব্রিটিশ উপনিবেশ আমলে পার্বত্য এই রেলসেতুটি নির্মাণ করা হয়েছিল। 

বিদ্রোহীরা আরেকটি সেতু ধ্বংস করার পাশাপাশি মাদক নিয়ন্ত্রণে নিয়োজিত পুলিশের একটি দপ্তরও পুড়িয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। ফোনে তিনি রয়টার্সকে বলেন, “সেখানে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে, তবে সংখ্যাটি এখনই নিশ্চিত করতে পারবো না আমরা।”

শান রাজ্যের বৃহত্তম শহর লাশিও মুখি মহাসড়কের একটি টোল গেটেও লড়াই চলছে বলে দমকল বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। কয়েক দশক ধরেই এই অঞ্চলটিতে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সরকারি বাহিনীর লড়াই চলছে। সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীগুলোর অধিক স্বায়ত্তশাসনের লক্ষ্যে বেশ কয়েকটি গোষ্ঠী এখানে লড়াই করছে। এ হামলায় ওই লড়াই আরও তীব্র হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Ads
Ads