রাস্তার ৫ কিলোমিটার জুড়ে শতশত পশুর চামড়া

  • ১৪-Aug-২০১৯ ০৬:০৪ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ৫ কিলোমিটার জুড়ে রাস্তার পাশে ফেলা হয়েছে কোরবানির পশুর শত শত চামড়া। দাম না পাওয়ায় আবার কেউ ক্ষোভ অভিমানে কোরবানির পশুর চামড়া ফেলে দিয়েছেন।

দেখা গেছে ঢাকা নারায়নগঞ্জ লিংক রোডের ১০ কিলোমিটার সীমানার মধ্যে প্রায় ৫ কিলোমিটার জুড়ে রাস্তার দুই পাশে ময়লা আবর্জনার সাথে ফেলে দিয়েছে কোরবানির পশুর চামড়া। 

আর এসব চামড়া অপসারণে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা প্রশাসনের মধ্যে দেখা দিয়েছে সীমানা নিয়ে জটিলতা।

সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী অফিসার এএফএম এহতাসিমুল হকের দাবি, যে স্থানটিতে পশুর চামড়া ফেলা হয়েছে সেটি ফতুল্লায়। তবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার চাইলে আমাদের সিটি কর্পোরেশন থেকে তাকে চামড়া অপসারণে সহযোগিতা করা হবে।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাহিদা বারিকের দাবি, যে স্থানটিতে চামড়া ফেলা হয়েছে সেটি সিটি কর্পোরেশনের জালকুড়ি এলাকা।

ঈদের আগেও ওই স্থানটিতে ৪টি মরা গরু ফেলা হয়েছে। দূর্গন্ধের জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেগুলো আমি লোক দিয়ে অপসারন করিয়েছি। সিটি কর্পোরেশনের পর্যাপ্ত লোকবল আছে, তারাই এগুলো অপসারণ করবে।

এ পথ দিয়ে যাতায়াতকারী বিভিন্ন পরিবহন যাত্রীরা মন্তব্য করছেন, পানির দরে পশুর চামড়া বিক্রি করার চাইতে রাস্তার পাশে ময়লা আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেয়া অনেক ভালো।

লিংক রোডের জালকুড়ি এলাকার বাসিন্দা মাসুম আহমেদ জানান, ১লাখ ১০ হাজার টাকার গরু কোরবানি দিলাম আর চামড়ার দাম ৩শ টাকা বলে। তার চাইতে রাস্তায় ফেলে দেয়া অনেক ভালো। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এতিমের হক যারা এভাবে নস্ট করেছে তাদের কি বিচার হবে আল্লাহ ভালো জানে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে লিংক রোডের জালকুড়ি, দেলপাড়া, কড়ইতলা, কাজীবাড়ি, ভুইগড়সহ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার দুই পাশে পড়ে আছে পশুর চামড়া। বিশেষ করে ময়লা আবর্জনার স্থলে পড়ে আছে চামড়ার স্তুপ। এসবে পচনধরে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। 

দেলপাড়ার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম জানান, মানুষ কস্টে দু:খে পশুর চামড়া রাস্তা ফেলে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

 

/কে 

Ads
Ads