হিরোশিমা দিবস-২০১৯’ এ ব্ল্যাকফ্লেইম থিয়েটার প্রযোজনা ‘দা ডার্ক হিস্ট্রি' মঞ্চস্থ

  • ৭-Aug-২০১৯ ০৮:০০ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::
 
‘নো মোর হিরোশিমা-নো মোর নাগাসাকি, এ ট্র্যাজেডি নেভার টু বি রিপিটেড’ স্লোগানে ‘জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন’ এর আয়োজনে উদযাপিত হলো ‘হিরোশিমা দিবস-২০১৯’’।  রাজধানীর শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘর এর কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে গতকাল ৬ই আগস্ট মঙ্গলবার অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে হিরোশিমা-নাগাসাকি ট্রাজেডির ঘটনা অবলম্বনে ‘ব্ল্যাকফ্লেইম থিয়েটার, ঢাকা’ এর প্রযোজনা “দ্যা ডার্ক হিস্ট্রি” মঞ্চস্থ হয়।

প্রযোজনাটি নির্দেশনা দিয়েছেন তানভীর শেখ।  প্রযোজনার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করেন রেজাউল মাওলা নাবলু। অভিনয়ে ইয়াছিন আরাফাত, অলিভ, ফাহিম আলিফ, অমিত কুমার, নূরে আলম, হৃদয়উল হক এছাড়াও সংঙ্গীত প্রক্ষেপন, মেক-আপ, ও নেপথ্যে ছিলেন যথাক্রমে নূরে আলম, শারমিন কবির, নিরা রহমান, জাবিন শিখা, রিমু, কাসপিয়া, রাম কৃষ্ণ মিত্র, রাসেল, মোবাল্লেগ, আরিয়ান, নাঈম ও ফারজানা ইয়াসমিন প্রমুখ। 

'বিনোদনে নান্দনিকতা' স্লোগানে প্রতিষ্ঠিত ব্ল্যাকফ্লেইম থিয়েটার এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সম্পাদক তানভীর শেখ বলেন, ১৯৪৫ সালের ৬ই আগষ্ট সকাল ঠিক ৮:১৫ মিনিটে প্রতিদিনের মতো যখন সমস্ত শ্রমিক কাজের জন্য যে যায় কর্মস্থলে যোগদান করেছে ঠিক তখনই জাপানের হিরোশিমা ও তার ৩ দিনপর ৯ই আগষ্ট জাপানের আরেকটি শহর নাগাসাকিতে পারমাণবিক হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলার সময় সাধারন মানুষ এর জীবনচিত্র, আতঙ্ক, বোমা বিস্ফোরন এর ভয়াবহতা এবং সর্বপরি সেই পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে আত্মবিশ্বাস এর সাথে মাথা উঁচু করে বিশ্ব দরবারে যুদ্ধবিরোধী সচেতনতা এবং সর্বোপরি সেইরকম ভয়াবহ ট্রাজেডি যেন পৃথিবীতে আর কখনো পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেই আবেদনের প্রক্ষাপটে নির্মিত হয়েছে ব্ল্যাকফ্লেইম থিয়েটার প্রযোজনা  “দ্যা ডার্ক হিস্ট্রি।

মিলনায়তন পূর্ণ দর্শক সহ অতিথীবৃন্দ প্রযোজনাটির ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং মন্ঞ্চায়ন শেষে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ এমপি প্রযোজনাটির প্রশংসা করে এর সাফল্য কামনা করেন এবং নির্দেশকের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন। 

এছাড়াও ‘হিরোশিমা দিবস-২০১৯” আয়োজনের প্রথম পর্বে সন্ধ্যা ৭টায়  যুদ্ধ ও পারমাণবিক অস্ত্র বিরোধী আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপস্থিত ছিলেন গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ এমপি। এ আয়োজনে গেস্ট অব অনার হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকাস্থ জাপান দূতাবাস এর  রাষ্ট্রদূত হিস এক্সেলেন্সি হিরোইয়াসু ইজুমি। আলোচনা অনুষ্ঠানে হিরোশিমা-নাগাসাকি ট্রাজেডির ভয়াবহতা সামনে রেখে যুদ্ধবিরোধী মূলবক্তব্য প্রদান করেন জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন এর প্রধান উপদেষ্টা ও জাতিসংঘের সাবেক পরিবেশ বিজ্ঞানী ড. এস. আই. খান।

এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক, বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক ও ট্যাগোর ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ আর্ট এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর সৈয়দ মো: শাহেদ, জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন এর উপদেষ্টা ও জাপান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এর সেক্রেটারি জেনারেল জনাব তারেক রাফি ভূইয়া জুন, জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন এর মহাসচিব ড. কায়েম উদ্দিন, বিবেক বার্তার সম্পাদক পি আর প্লাসিড, পটশিল্পী টাইগার নাজির এবং সর্বোপরি এ আয়োজনের সভাপতিত্ব করেন  ‘ জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন' এর প্রেসিডেন্ট জনাব হুমায়ুন কবির সুইট। 
        
এছাড়াও এ আয়োজনে এবার রোহিঙ্গা ক্রায়সিস ম্যানেজমেন্ট এ বিশেষ ভূমিকা পালন করে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা  এবং সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডে সংঘটিত মসজিদের হামলা পরবর্তী সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে বিশ্ব শান্তির পথে নেতৃত্বের দূত হিসেবে আলোচিত  নিউজিল্যান্ড এর প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা অরডার্ন কে  জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন’ প্রবর্তিত ‘জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন পিস এ্যওয়ার্ড দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। মাননীয় তথ্য মন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ এমপি প্রধানমন্ত্রী দ্বয়ের এ এ্যওয়ার্ড উন্মোচন করেন। 

সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট জনাব হুমায়ুন কবির সুইট বলেন গত ১৫ বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও ‘জাপান বাংলা পিস ফাউন্ডেশন' এর আয়োজনে এবং  ‘হিরোশিমা পিস মেমোরিয়াল মিউজিয়াম, জাপান', ‘ঢাকাস্থ জাপান দূতাবাস’ এবং ‘ব্ল্যাকফ্লেইম থিয়েটার, ঢাকা' এর সহযোগিতায় ‘হিরোশিমা দিবস-২০১৯’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

এবং সবশেষে বাংলাদেশে বসবাসরত জাপানিজ নাগরিকদের সংগঠন “বাজনা বিট” এর বিশেষ পরিবেশনায় অংশগ্রহন করেন মায়ে ওয়াতানাবে ও তাঁর দল।

Ads
Ads