বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেলো ছেলের

  • ৭-Aug-২০১৯ ০৩:১২ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

রাতের খাবার খেয়ে বাড়ির বারান্দায় ঘুমিয়ে পড়েন হিরু শেখ। গভীর রাতে একদল দুর্বৃত্ত হামলে পড়েন ঘুমিয়ে থাকা ওই বৃদ্ধের ওপর। পেটাতে থাকেন এলোপাতাড়ি। চিৎকার শুনে ঘর থেকে দৌড়ে বেরিয়ে আসেন ছেলে নাঈম শেখ। বাবাকে প্রাণে রক্ষা করতে পারলেন দুর্বৃত্তদের হাত থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারেননি। একের পর এক পিটুনি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলেই নিভে যায় তার জীবন প্রদীপ।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে খুলনার তেরখাদা উপজেলার ছাগলাদাহ ইউনিয়নের পহরডাঙ্গা গ্রামে। আহত হিরু শেখকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর তার ছেলের লাশ রাখা হয়েছে একই হাসপাতালের মর্গে।

স্থানীয়রা জানান, রাতে নাঈমের বাবা হিরু ঘরের বারান্দায় ঘুমিয়ে ছিলেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা ঘুম থেকে ডেকে তুলে তার ওপর হামলা চালান। চিৎকার শুনে নাঈম বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকে দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও লাঠি দিয়ে আঘাত করতে থাকে দুর্বৃত্তরা। এতে প্রচণ্ড রক্তক্ষরণে নাঈম ঘটনাস্থলেই মারা যান।

গুরুতর আহত হিরু শেখকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একদল প্রতিবেশি এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত বলে নিহতের পরিবার জানায়।

তেরখাদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খালেকুজ্জামান বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশিরা নাঈমকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। নাঈমের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে নেওয়া হয়েছে। আর তার বাবাকে একই হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

Ads
Ads