সেপ্টেম্বর থেকে ফেসবুক-ইউটিউবে সরাসরি হস্তক্ষেপ সম্ভব: মোস্তফা জব্বার

  • ২৯-Jun-২০১৯ ০৬:০১ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

সেপ্টেম্বরের পর সরকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে সরাসরি হস্তক্ষেপ করার সক্ষমতা অর্জন করবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার।

শনিবার (২৯ জুন) বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত ‘তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা জানান।

মোস্তফা জব্বার বলেন, রাষ্ট্রের এখন সবচেয়ে বড় ক্ষমতা হচ্ছে, রাষ্ট্র ইচ্ছে করলে যে কোনও ওয়েবসাইটকে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা রাখে। এটি আমাদের একটা বড় অর্জন। বিশেষ করে নির্বাচনের ঠিক আগ মুহূর্তে আমরা এই সক্ষমতা অর্জন করেছি। কারণ, সেই সময় কোনো গুজব ছড়াতে পারে নাই কেউ। ইতিমধ্যে ইন্টারনেটকে নিরাপদ করার জন্য ২২ হাজার পর্ন সাইট বন্ধ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি বেটিং সাইটও বন্ধ করা হয়েছে। যে জায়গায় সংকট তা হলো সোশ্যাল মিডিয়াতে যখন স্ট্যাটাস দেওয়া হয়, অথবা ভিডিওগুলো প্রচার করা হয়, সেগুলোর ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয় না। এর প্রধান কারণ হচ্ছে, ফেসবুক কিংবা ইউটিউব মার্কিন প্রতিষ্ঠান। তারা আমেরিকান কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড অনুসরণ করে পরিচালনা করে থাকে, তাই আমরা সরাসরি তাদের হস্তক্ষেপ করতে পারি না।

তিনি আরও বলেন, সুখবর হলো, আমরা আশা করছি সেপ্টেম্বর মাসের পর আমরা এক্ষেত্রেও সরাসরি হস্তক্ষেপ করার ক্ষমতা অর্জন করব। অর্থাৎ কেউ ইচ্ছা করলেই ফেসবুক-ইউটিউবে যা খুশি তাই প্রচার করতে পারবে না। বিশেষ করে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেই সক্ষমতা অর্জন করেছে, এটা গর্ব করার বিষয়।

মন্ত্রী বলেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে মিথ্য ও গুজব ছড়ায় কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টাল। এগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে সমস্যা হয়ে যায়। তথ্যমন্ত্রী যদি নিবন্ধন তালিকা শেষ করেন, তাহলে আমরা অনিবন্ধিতগুলো বন্ধ করে দিতে পারব।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সকলকে সর্তকতা থাকার আহ্বান জানান জাব্বার। বলেন, সকলে যদি সর্তক থাকলে তাহলে বেসিক যে নিরাপত্তার রয়েছে তা নিশ্চিত হবে।

অনলাইন নিউজপোর্টালগুলোকে দ্রুত নিবন্ধনের তাগিদ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘আমরা সমস্ত অনলাইনগুলোকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য ৩০ তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছি। এরপর তথ্য মন্ত্রণালয়, আইসিটি মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে বৈধ অনলাইন পত্রিকার তালিকা প্রকাশ করব। একবার শুনলাম তিন হাজার আবেদন জমা পড়েছে। এরপর আবার নাকি আরো পাঁচ হাজার জমা পড়েছে। আমরা হয়ত আর এক সপ্তাহ, ১০ দিন সময় বাড়াব। কিন্তু সবাইকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ভারতের সঙ্গে বৈরিতার মধ্যদিয়ে এগিয়ে যাওয়া কঠিন। ভারত আমাদের বৃহৎ প্রতিবেশী রাষ্ট্র। তাদের সঙ্গে আমাদের সুসম্পর্ক কিন্তু ভারতের সঙ্গে স্বার্থ আদায়ে আমরা একচুলও ছাড় দেইনি।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, ‘বিএনপি- জামায়াত ভারতের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডা করে সস্তা রাজনীতি করছে। ভারতে সঙ্গে বাংলাদেশের শিকড়ের সম্পর্ক রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত আমাদের শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়েছে। খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে সকল ভাবে সহযোগিতা করেছে। ভারতকে হেয় প্রতিপন্ন করে সস্তা রাজনীতি করতে চায় না আওয়ামী লীগ।’

এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে ফাঁসি রায় কার্যকর করা না গেলে নিজেকে ব্যর্থ মনে করবেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী শাহ আলী ফরহাদের সঞ্চালনায় সভায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ।

Ads
Ads