সাকিবের দিনে টাইগারদের জয়

  • ২৪-Jun-২০১৯ ১১:১৫ অপরাহ্ন
Ads

 :: স্পোর্টস ডেস্ক ::

বিশ্বকাপের আজকের খেলায় প্রত্যাশিত জয় তুলে নিল টাইগাররা। বিশেষ করে সাকিব তাণ্ডবে কোনভাবেই মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি আফগানিস্তান।

শুরুতে টস হেরে ব্যাট করে বাংলাদেশ। মুশফিক-সাকিবের ব্যাটে ভর করে আফগানদের সামনে ২৬৩ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয় টাইগাররা। সে রান চেজ করতে গিয়ে একের পর এক উইকেট হারিয়ে দিশেহারা আফগান শিবিরি। শেষ পর্যন্ত টাইগারদের জয় হয় ... রানের।

মূলত আজকে বিশ্ব দেখে সাকিবের মিডনাইট শো। সাকিব তার প্রথম ওভারে এসেই তুলে নেন রহমত শাহ কে। তামিমের ক্যাচে পরিণত হওয়ার আগে তিনি করেন ২৪ রান। এরপর আউট হন হাসমতউল্লাহ শাহিদী। মোসাদ্দেকের বলে তাকে স্ট্যাম্পড করেন মুশফিকুর রহিম। আউট হবার আগে তিনি ৩১ বলে করেন ১১ রান। 

২৯তম ওভারে সাকিব হানেন জোড়া আঘাত। লিটনের দর্শনীয় ক্যাচে ৪৭ রানে নাইব ফেরার পরপরই নবীকে ০ রানে বোল্ড করেন সাকিব। নতুন জুটি জমে ওঠার আগে আসগর আফগানকে সাব্বিরের তালুবন্দি করে আবারও নায়ক সাকিব। ইকরাম খিলকে দুর্দান্ত থ্রো থেকে রান আউট করেছেন লিটন দাস। 

বিশ্বকাপের ৩১তম ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরে সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন নিয়ে ইংল্যান্ডে পা রেখেছিল টাইগাররা।

সাউদাম্পটনের রোজ বোলে টস হেরে ব্যাটে নামে বাংলাদেশ। সৌম্যের বদলে তামিমের সঙ্গে ওপেন করতে নামেন লিটন দাস। স্পিনার মুজিবের বলে শাহিদির কাছে ক্যাচ তুলে দেন এই ব্যাটসম্যান। বিতর্কিত ক্যাচে ঘরে ফেরেন লিটন দাস।

এর আগে লিটনের ব্যাট থেকে আসে ১৭ বলে ১৬ রান। শুরুতেই উইকেট হারানোর পর সাকিব তামিমের জুটিতে ঘুরে দাড়িয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু তামিমের দিনটা ভালোছিল না। নবীর বলে ৩৬ করে বোল্ড হন তামিম। 

সাকিব ৫০ করার পর মুজিবের বলে সাজঘরে ফেরেন। সৌম্যকেও শিকার হতে হয় আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্তের। বোলার সেই মুজিব। ফেরার আগে সৌম্য করেন ৩ রান। 

রিয়াদ ও মুশি মিলে পঞ্চাশোর্ধ পার্টনারশিপ গড়ার পর উড়িয়ে মারতে যেয়ে ক্যাচ আউট হন রিয়াদ। এর আগে ৩৮ বলে করেন ২৭ রান। 

মুশি এগোচ্ছিলেন সেঞ্চুরির পথে। কিন্ত তাকে থামিয়ে দেন দৌলত জাদরান। ৮৭ বলে ৮৩ রানের দর্শনীয় ইনিংস খেলেন মুশফিক।

শেষদিকে মোসাদ্দেক ও সাইফউদ্দিন মিলে বাকী পথ বিপদ ছাড়াই পার করেন। ইনিংসের শেষ বলে আউট হওয়ার আগে মোসাদ্দেক খেলেন ২৪ বলে ৩৫ রানের ঝড়ো ইনিংস।  

মুজিব একাই শিকার করেন ৩ উইকেট। এছাড়া দৌলত, নবী ও নাইব নেন একটি করে উইকেট। 

Ads
Ads