ফাইনাল খেলবে মাশরাফি বাহিনী!

  • ১৮-Jun-২০১৯ ১১:২০ অপরাহ্ন
Ads

:: ড. কাজী এরতেজা হাসান ::

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হেসেখেলে প্রত্যাশিত জয় পেয়েছে টাইগাররা। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে এই প্রথম ৩২২ রানের পাহাড় ডিঙিয়ে জয় পেল বাংলাদেশ। এর আগে গত বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৩১৯ রানের রেকর্ড তাড়া করে জয় পেয়েছিল মাশরাফিরা।

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ মিশনকে সামনে রেখে দেশ ছাড়ার আগে বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ের অন্যতম নির্ভরতা মুশফিকুর রহিম বলেছিলেন, মাশরাফি ভাইয়ের জন্য বিশ্বকাপে আমরা ভালোকিছু করতে চাই। দীর্ঘদিন ধরে দেশের ক্রিকেটকে যারা নিজেদের সবটুকু উজাড় করে দিচ্ছেন, তাদের বিদায়ী বিশ্বকাপকে স্মরণীয় করে রাখার এক ধরনের তাড়না কিংবা মানসিক দায়বদ্ধতা অনুভব করেন সতীর্থ ক্রিকেটাররা। বিজয়ীর বেশে অগ্রজকে বিায় দেওয়ার সেই আকাক্সক্ষার কথাই জানান মুশফিক।

এবারের বিশ্বকাপ এক সুতোয় বেঁধেছে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি ও উইন্ডিজ রান মেশিন ক্রিস গেইলকে। এবারের আসরে অংশ নেওয়া ক্রিকেটারদের মধ্যে এ দুজনই কেবল খেলেছেন ২০০৩ বিশ্বকাপে। বিশ্বকাপে অংশ নেওয়ার দিক থেকে এ দুজনই সবচেয়ে অভিজ্ঞ। ৩৫ পেরিয়েছেন মাশরাফি। আর ৪০ ছুঁইছুঁই গেইল। বিশ্বের প্রায় সব গ্রেটদের চোখে এ সময়ের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি। আর সীমিত ওভারের ক্রিকেটে এখনও বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক ব্যাটসম্যান গেইল।

এটাই তার শেষ বিশ্বকাপ, আগেই জানিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশ সংসদের নবীন সদস্য মাশরাফি। এমনিতেই গত বেশ কয়েক বছর ধরেই ওয়ানডে ক্রিকেটে অনিয়মিত গেইল। প্রৌঢ়ত্বের প্রান্তবেলায় পৌঁছানো এই ক্যারিবীয় ওপেনারকে আনা হয়েছে বিশ্বকাপকে মাথায় রেখেই। গত চার দশক ধরে বিশ্বকাপ শিরোপা নাই এক সময়ের ক্রিকেটের শ্রেষ্ঠ বিবেচিত ওয়েস্ট ইন্ডিজের। হালে নতুনভাবে শুরুর একটা ইঙ্গিত দেখা যাচ্ছে দলটির মধ্যে। অধিনায়ক জ্যাসন হোল্ডারের নেতৃত্বে দলটির মধ্যে বিশৃঙ্খলাও কমে এসেছে অনেকটা। বেশ কয়েকজন প্রমাণিত ম্যাচ উইনারের উপস্থিতি বর্তমানে একটা সম্ভবানার ওপর দাঁড় করিয়েছে উইন্ডিজকে। এরে সঙ্গে গেইলকে যুক্ত করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা ক্যারিবীয় ক্রিকেট ম্যানেজম্যান্টের।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের বড় স্বপ্নের সবটুকু জায়গাজুড়েই মাশরাফি। সেরা অধিনায়কের সনদ নিয়েই এবারের বিশ্বকাপ অংশ নিচ্ছেন মাশরাফি। শুধু তার নেতৃত্বগুণেই ঢেকে যায় বাংলাদেশ ক্রিকেটে দলের অনেক ফাঁকফোকর, ত্রুটি-বিচ্যুতি, সামর্থ্যের সীমাবদ্ধতা। এই মাশরাফির জন্য নিজেরে সবটুকু উজাড় করে দেওয়ার প্রতিজ্ঞা সতীর্থদের। 

ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপে মিশনে বাংলাদেশ দল দেশ ছাড়ার আগে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ক্রিকেটাররা। এ সময় বিশ্বকাপে নিজেদের সর্বোচ্চ দিয়ে খেলতে মাশরাফিদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ একদিন বিশ্বকাপ জিতবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন। খেলোয়াড়দের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব সময় আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলবে। আমরাই জিতব মনের মধ্যে এ বিশ্বাস রাখবে। যদি, কিন্তু, না- এরকম দোটানায় ভুগবে না। হেরে গেলে কী হবে- এ চিন্তা করা যাবে না। সব সময় মনে করবে, আমরাই জিতব। এরপর যা হয় হবে। খেলায় হারজিত থাকবেই। তবু দেশের জন্য নিজের সর্বোচ্চটা উজাড় করে দিয়েই খেলতে হবে।

আজ পর্যন্ত বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে খেলেনি বাংলাদেশ। সেখানে কত বড় স্বপ্ন দেখা সম্ভব? স্বপ্নের সঙ্গে তো বাস্তবতাও থাকতে হবে। কিন্তু যখন নেতা মাশরাফি, তখন পরিসংখ্যান, উপাত্ত সব কিছুকেই ভুল করে দেওয়ার চ্যালেঞ্জ অনুভব করে বাংলাদেশে দলের প্রতিটি ক্রিকেটার। মুশফিকের ভাষায়, প্রথমে সেমিফাইনাল। তারপর তো একটা করে ম্যাচ।

মাশরাফির নেতৃত্বে এবারে বিশ্বকাপে আমাদের যে টিম পাঠানো হয়েছে, সে দলের সবাই এখন ফর্মের তুঙ্গে আছেন। সেরাদের সেরা বলেই তারা জায়গা পেয়েছে স্কোয়াডে। আর এজন্যই এই দলটা যে বিশ্বকাপে অসাধারণ কিছু করে দেখাবে, সেই বিশ্বাস আমি হৃদয়ে ধারণ করি।

Ads
Ads