পাঞ্জাবির ওপর ব্লেজার পরে রানির সঙ্গে সাক্ষাৎ, ভারতীয়রাই ঠেকিয়ে দিচ্ছে সরফরাজের সমালোচনা!

  • ৩১-মে-২০১৯ ০৭:৫৯ অপরাহ্ন
Ads

:: স্পোর্টস ডেস্ক ::

বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিকতার অংশ হিসেবে বাকিংহাম প্যালেসে ব্রিটেনের রানির সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন সব দলের অধিনায়করা। সুন্দর আর পরিপাটি পোশাকের বাইরে রানির প্রাসাদে নিয়মের কোনো বাত্যয় নেই বললেই চলে। নিয়মের কঠোরতার মধ্যে সঠিক পোশাক, সঠিক আদল মেনে দাঁড়ানো, বসা, মার্জিত ভাষায় কথা বলা, হাঁটা-চলা করতে হয় বেশ শৃঙ্খলার মধ্যদিয়ে। কিন্তু সেই নিয়মের বাইরে গিয়ে ঐতিহাসিক রাজপ্রাসাদে গেলের পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।

সব দেশের অভিনায়করা যেখানে রানির প্রাসাদে স্যুট-টাই আর কোট পরে দেখা করতে গেলেন, সেখানে পাক অধিনায়ক সরফরাজ হাজির হলেন পাঞ্জাবি-পাজামার ওপর ব্লেজার চাপিয়ে। পাক অধিনায়কের বেশভূষণে এমন বৈচিত্রতা দেখে সমালোচনা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। রীতিমতো সরফরাজের এমন পোশাকের সমালোচনা করেছেন পাকিস্তানিরা।

পাক অধিনায়ক সাহস দেখিয়ে এটি করলেন, নাকি দুঃসাহস প্রদর্শন করলেন-তা নিয়ে এখন আলোচনা চলছে। তবে, সরফরাজের এই ধৃষ্টতা মেনে নেননি পাকিস্তানিরা। তুলোধনা করেন সরফরাজকে। এমনকি, পাকিস্তানিরা সরফরাজকে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করলেন।

তবে পাঞ্জাবির ওপর ব্লেজার চাপিয়ে নিজের শিঁকড়কে তুলে ধরছেন পাক অধিনায়ক এমনটিও কেউ কেউ বলছেন। জাতীয় পোশাক পরে রানির সামনে যেতে একটুও লজ্জা পাননি তিনি।

কিন্তু এই গোটা ঘটনায় সব থেকে মজার ব্যাপার হলো, পাকিস্তানি অধিনায়কের এমন উদ্যোগকে যেখানে ব্যঙ্গ করেছেন তার নিজের দেশের মানুষেরা, সেখানে তার এমন উপস্থাপনকে সমর্থন জানালেন ভারতীয় সমর্থকরা।  কারণ ধুতি পরে লন্ডনে রাজার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন জাতির জনক মহাত্মা গান্ধী। তার এক পরামর্শদাতা বারণ করেছিলেন এমন পোশাকে যেন তিনি রাজার সামনে না যান। কিন্তু গান্ধীজি তার কথা শোনেননি। বলেছিলেন, আমি রাজাকে দেখাতে চাই যে, ‘তোমরা আমাদের সবই লুঠ করে নিয়েছ। বিলাসিতা দেখানোর মতো কিছুই আর আমাদের কাছে নেই।’

গান্ধীজির এই অভিনব প্রতিবাদের ভাষা পরাধীন ভারতবাসীর মনোবল শক্ত করেছিল। শিখিয়েছিল, কিভাবে নিজের শিঁকড় আঁকড়ে থাকতে হয়। যা কিছু নিজের, নিজের দেশের ঐতিহ্য সেটা প্রদর্শনে কোনো লজ্জা থাকতে নেই।

গান্ধীজির কথা স্মরণ করে সরফরাজ আহমেদ বাকিংহাম প্যালেসে গিয়েছিলেন? নাকি নিজের একান্ত ব্যক্তিগত ইচ্ছায় এমনটি করেছেন তা নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যঙ্গ।

পাকিস্তান থেকে বহিস্কৃত লেখক তারেক ফতেহ বিদ্রুপ করে লিখেছেন, ‘প্রত্যেক দলের ক্যাপ্টেনরা, আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড- স্মার্ট জ্যাকেট ও টাই পরে এসেছিলেন। একমাত্র পাকিস্তানি ক্যাপ্টেন ছাড়া। উনি যে লুঙ্গি, গেঞ্জি, টুপি পরে চলে আসেননি এতেই আমি অবাক। এটা কী করে সম্ভব...!’

তারেক ফতেহ অত্যন্ত আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে সরফরাজের পাজামা পরে আসার ঘটনাটির সমালোচনা শুরু করেছিলেন। তবে, তার জবাব পেতে বেশি দেরি হয়নি। ভারতীয় সমর্থকরা তাকে পাল্টা যুক্তি দেন, রানি কিন্তু নিজস্ব পোশাকেই দেখা করতে এসেছিলেন। তাতে দোষ নেই! তা হলে সরফরাজ নিজের দেশের পোশাকে এসে কী দোষ করলেন!

Ads
Ads