উইন্ডিজের ইনিংস শেষ, বাংলাদেশের কত টার্গেট দেখে নিন

  • ১৩-মে-২০১৯ ০৭:৩৩ অপরাহ্ন
Ads

:: স্পোর্টস ডেস্ক ::

ত্রিদেশীয় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। ব্যাটিংয়ে নেমে শাই হোপের দুর্দান্ত ৮৭ এবং অধিনায়ক জেসন হোল্ডারের ৬২ রানের উপর ভর করে ৫০ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯ উইকেটে ২৪৭ রান। বাংলাদেশের পক্ষে চারটি উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান, মাশরাফি মর্তুজা নেন ৩ উইকেট। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন সাকিব এবং মিরাজ। জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে ২৪৮ রান।

অ্যালেনকে ফেরালেন সাকিব

দারুণ বোলিং করা সাকিব আল হাসান উইকেট পেলেন নিজের শেষ ওভারে। এলবিডব্লিউ করে ফিরিয়ে দিলেন অলরাউন্ডার ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে।

অ্যাঙ্গেলে ভেতরে ঢোকা বল ব্যাটে খেলতে পারেননি অ্যালেন। একটু সময় নিয়ে এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। ৯ বলে এক চারে ৭ রান করে ফিরেন অ্যালেন।

৪৫ ওভার শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর ২১১/৭। ক্রিজে রেমন রিফারের সঙ্গী অ্যাশলি নার্স।

মাশরাফির তৃতীয় শিকার হোল্ডার

টানা দুই ওভারে আঘাত হানলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। শেই হোপকে ফেরানোর পর এবার বিদায় করলেন জেসন হোল্ডারকে।

৪৪তম ওভারে বাংলাদেশ অধিনায়কের অফ স্টাম্পের বাইরের বল কাট করার চেষ্টায় ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক ধরা পড়েন মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে। ৭৬ বলে তিন চার ও এক ছক্কায় ৬২ রান করে ফিরেন হোল্ডার।

চারে চার হলো না হোপের

শতরানের জুটি ভাঙলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ফিরিয়ে দিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষে টানা চতুর্থ সেঞ্চুরির আশা জাগানো শেই হোপকে।

সুইং করে বেরিয়ে যাওয়া বল লেগে ঘুরাতে চেয়েছিলেন হোপ। ঠিক মতো ব্যাটে খেলতে পারেননি। নিচের কানায় লেগে ক্যাচ জমা পড়ে মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে। ১০৮ বলে ছয় চার ও এক ছক্কায় ৮৭ রান করে ফিরেন হোপ। ভাঙে ১০০ রানের জুটি।

মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার কার্টার

দুই প্রান্তেই আঁটসাঁট বোলিংয়ে থমকে গেছে রানের গতি। প্রথম এগারো ডট বল খেলে মাত্রই রানের দেখা পেয়েছিলেন জোনাথন কার্টার। তবে তাকে টিকতে দিলেন না মুস্তাফিজুর রহমান।

২৪তম ওভারে বাঁহাতি পেসারের স্কিড করে ভেতরে ঢোকা বল ব্যাটে খেলতে পারেননি কার্টার, আঘাত হানে প্যাডে। জোরালো আবেদনে একটু দেরিতে সাড়া দেন আম্পায়ার। ১৪ বলে তিন রান করে ফিরে যান কার্টার।

চেইসকে ফেরালেন মুস্তাফিজ

নিজের দ্বিতীয় ওভারে আঘাত হানলেন মুস্তাফিজুর রহমান। বাঁহাতি এই পেসার ফিরিয়ে দিলেন রোস্টন চেইসকে।

মুস্তাফিজের অ্যাঙ্গেলে ভেতরে ঢোকা বলে ফ্লিক করতে চেয়েছিলেন চেইস। একটু আগেভাগে শট খেলে ফেলায় টাইমিং করতে পারেননি। মিডউইকেটে সহজ ক্যাচ যায় মাহমুদউল্লাহর হাতে। ৩৬ বলে দুই চারে ১৯ রান করে ফিরেন চেইস।

২০ ওভার শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর ৮৯/৩। ক্রিজে শেই হোপের সঙ্গী জোনাথন কার্টার।

মিরাজই ফেরালেন ব্রাভোকে

বাজে সময় কাটানো ড্যারেন ব্রাভো কাজে লাগাতে পারলেন না সুযোগ। যিনি জীবন দিয়েছিলেন সেই মেহেদী হাসান মিরাজই ফেরালেন ক্যারিবিয়ান বাঁহাতি এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে।

নিজের তৃতীয় ওভারে উইকেট পেলেন মিরাজ। অফ স্টাম্পের বাইরে পড়ে স্পিন করে ভেতরে ঢোকা বল ঠিক মতো খেলতে পারেননি ব্রাভো। ব্যাটের কানা ফাঁকি দিয়ে প্যাডে লাগলে এলবিডব্লিউ দেন আম্পায়ার।

৫ রানে জীবন পাওয়া ব্রাভো ফিরেন ১৩ বলে ৬ রান করে। ১১ ওভার শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর ৫৭/২। ক্রিজে শেই হোপের সঙ্গী রোস্টন চেইস।

প্রথম আঘাত মাশরাফির

দ্রুত এগোনো সুনিল আমব্রিসকে থামালেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ষষ্ঠ ওভারে অধিনায়কের বলে স্লিপে ডানহাতি ওপেনারের চমৎকার এক ক্যাচ নেন সৌম্য সরকার।

সুইং করে ভেতরে ঢোকা বল কাট করতে চেয়েছিলেন আমব্রিস। শরীরের বেশি কাছে থাকা বলে ঠিক মতো শট খেলতে পারেননি। সুযোগ এসে যায় স্লিপে দাঁড়ানো সৌম্যর সামনে। ঝাঁপিয়ে দুই হাতে ক্যাচ তালুবন্দি করেন তিনি।
 
১৯ বলে চারটি চারে ২৩ রান করে ফিরেন আমব্রিস। ভাঙে ৩৭ রানের উদ্বোধনী জুটি। ক্রিজে শেই হোপের সঙ্গী ড্যারেন ব্রাভো

Ads
Ads