প্রযুক্তি
শুক্রবার, ১৮ আগস্ট ২০১৭ ৩ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

‘র‌্যানসমওয়্যার’ সাইবার হামলায় এবার আক্রান্ত বাংলাদেশ

:: ভোরের পাতা অনলাইন ::

বাংলাদেশও আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বজুড়ে সংঘটিত র‌্যানসমওয়্যার সাইবার হামলার। দেশের অন্তত ৩০টি ব্যবসায়ীক কম্পিউটার সাইবার হামলার শিকার হয়েছে। বাংলাদেশের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ক্রাইম রিসার্চ অ্যান্ড এনালাইসিস ফাউন্ডেশনের প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট তানভীর জোহা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বাংলাদেশের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি পর্যায়ে পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার হওয়ায় সামনে বড় ধরনের ঝুঁকি রয়েছে বলে সতর্ক করছেন দেশের সাইবার নিরাপত্তা সংশ্লিষ্টরা।

আক্রান্ত পিসির ফাইলে ঢোকা যাচ্ছে না। সেখানে ঢুকতে অর্থ দাবি করা হচ্ছে। এশিয়ান টিভির ১২টি কম্পিউটারে এ ধরনের ম্যালওয়্যার আক্রমণ হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রতিষ্ঠানটির কারিগরি বিভাগের প্রধান পারভেজ চৌধুরী।

এ বিষয়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও বিডিনগ বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ সাবির জানিয়েছেন, বাংলাদেশে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগত কম্পিউটারে র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণ করেছে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগত পিসিতে আক্রমণের বিষয়টি তিনি নিশ্চিত হয়েছেন। আক্রান্ত অনেক প্রতিষ্ঠান নিজের নাম প্রকাশ করতে চায় না। ব্যক্তিগত পর্যায়ে কিছু পিসি আক্রান্ত হয়েছে। তবে আক্রান্ত পিসির সঠিক সংখ্যা জানাননি তিনি।

শুক্রবার একযোগে ১ লাখ ২৫ হাজারেরও বেশি কম্পিউটার সিস্টেম সাইবার হামলার শিকার হয়েছে। হ্যাকারদের ছড়ানো স্প্যাম লিঙ্ক ওপেনের সঙ্গে সঙ্গেই কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ হারায় ব্যবহারকারীরা। স্প্যামের মাধ্যমে হ্যাকাররা চাকরির প্রস্তাব, চালান, নিরাপত্তা সতর্কতা ও অন্যান্য ফাইলের নিরাপত্তার প্রস্তাব দেয়।

র‌্যানসমওয়্যার এমন এক ধরনের ম্যালওয়ার বা ভাইরাস যা কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ ছিনিয়ে নেয় এবং ব্যবহারকারীকে প্রবেশে বাধা দেয়। অনেক সময় হার্ড ডিস্কের অংশ বা ফাইল পাসওয়ার্ড দিয়ে লক করে ফেলে। পরে ওই কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ ফেরত দেয়ার জন্য মুক্তিপণ বা অর্থ দাবি করা হয়।

বাংলাদেশে যেসব ব্যবসায়ীর কম্পিউটার সাইবার হামলার শিকার হয়েছে; তাদের অনেকেই মেইল করে সহায়তা চেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ক্রাইম রিসার্চ অ্যান্ড এনালাইসিস ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা তানভির জোহা।

তিনি জানান, “এ পর্যন্ত ৩০ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের নিজস্ব কম্পিউটার আক্রান্ত হবার খবর পেয়েছি এবং সেগুলো সমাধানও করে দেওয়া হয়েছে।”

ক্যাসপারস্কি ল্যাবের বাংলাদেশ-ভুটানের পরিবেশক ‘অফিস এক্সট্রেক্ট’ সিইও প্রবীর সরকার বলেন, “এরই মধ্যে আমরা দেশের মাঝারি ধরনের পাঁচটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আক্রান্ত হবার অভিযোগ পেয়েছি।”

তানভীর জোহা বলেন, আমরা দেখেছি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে এই ভাইরাসের আক্রমণ বেশি হয়, তবে মোবাইল ও ট্যাবেও হতে পারে। ভাইরাসের শিকার হয়ে কেউ সাহায্য চাইলে বিনামূল্যে সমাধান করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন ক্র্যাফের উপদেষ্টা তানভীর। সাইবার নিরাপত্তা ফার্ম আভাস্ট জানিয়েছে, তারা ৯৯টি দেশে ‘র‌্যানসমওয়্যার’ আক্রমণের ৭৫ হাজারটি ঘটনা শনাক্ত করেছে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের অধীন জাতীয় ডেটা সেন্টারের পরিচালক তারেক বরকত উল্লাহ জানান, বাংলাদেশের সরকারি পর্যায়ে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে লিনাক্স ব্যবহৃত হওয়ার সব সিস্টেম নিরাপদে আছে। আক্রমণ হয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ উইন্ডোজ সফটওয়্যারচালিত ডিভাইস।

তারেক বরকতউল্লাহ বলেন, র‍্যানসমওয়্যার বিষয়টি নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে আজ মঙ্গলবার সরকারের টেলিযোগাযোগ বিভাগে প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বিশেষ সভা হয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশ সাইবার ইমারজেন্সি রেসপন্স টিমের (সার্ট) পক্ষ থেকে করণীয় নিয়ে সার্টের ওয়েবসাইটে (সিআইআরটি ডটগভ ডটবিডি) তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। এ বাংলাদেশ টেলিকম রেগুলেটরি কমিশন সব কটি টেলিভিশনে র‍্যানসমওয়্যার বিষয়ে সতর্কবার্তা প্রকাশ করবে।

এ বিষয়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও বিডিনগ বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ সাবির বলেন, কয়েকটি আক্রমণের ঘটনা শনাক্ত করা হয়েছে। যদি কোনো পিসিতে আক্রমণ হয়, তবে অর্থ দেওয়া যাবে না। গুরুত্বপূর্ণ তথ্য না হলে পিসি ফরম্যাট দিয়ে ফেলতে হবে। আশঙ্কার কথা হচ্ছে—গত দুই দিনে র‍্যানসমওয়্যারটির দুটি নতুন সংস্করণ ছড়িয়েছে। এটা ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এ থেকে রক্ষা পেতে সচেতন থাকার বিকল্প নেই। যাঁরা উইন্ডোজ এক্সপি ব্যবহার করছেন, তাঁরা বেশি ঝুঁকিতে। উইন্ডোজ ৭ ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা প্যাঁচ হালনাগাদ করে নিতে হবে। অপরিচিত কোনো উৎস থেকে আসা মেইলের অ্যাটাচমেন্টে ক্লিক করা যাবে না। অনিরাপদ ওয়েবসাইটে যাওয়া, ছবি, সফটওয়্যার ডাউনলোডের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে।

রোববার ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এজেন্সি ফর ল’ এনফোর্সমেন্ট কো-অপারেশনের (ইউরোপোল) প্রধান রব ওয়েনরাইট বলেন, শুক্রবারের সাইবার হামলায় দুই লাখেরও বেশি কম্পিউটার আক্রান্ত হয়েছে। নজিরবিহীন এ হামলা বিশ্বের ১৫০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

ব্রিটেনের আইটিভিকে তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে এই সাইবার হামলা ছড়িয়ে পড়ার হুমকি রয়েছে। সোমবার এ হামলা আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

ইউরোপোল প্রধান বলেন, হ্যাকারদের ছড়ানো ভাইরাস কম্পিউটারে প্রবেশের পর ফাইলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিচ্ছে; পরে অনলাইনে চাঁদা দাবি করা হচ্ছে। ভয়াবহ এই সাইবার হামলায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাশিয়া এবং যুক্তরাজ্য।

সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে হওয়া সাইবার হামলাকে বিভিন্ন দেশের সরকারের জন্য একটি সতর্কবার্তা হিসেবে অভিহিত করেছে বিখ্যাত সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফট। সামনে আরও হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

র‍্যানসমওয়্যার হচ্ছে পরিচিত ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকর কম্পিউটার প্রোগ্রাম; যা কম্পিউটার বা মুঠোফোন ব্যবহারে বাধা দিয়ে থাকে। এটি একধরনের র‍্যানসম বা মুক্তিপণ দাবি করার মতো ব্যাপার।

হ্যাকারদের ছড়িয়ে দেওয়া ক্ষতিকর সফটওয়্যার র‍্যানসমওয়ারে গত শুক্রবার বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের হাজারো স্থানের কম্পিউটার-ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়ে। হামলার ব্যাপকতা গতকাল রোববার আরও বাড়ে। অন্তত ১৫০টি দেশ এই সাইবার হামলায় আক্রান্ত হয়েছে। হামলার শিকারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখের বেশি। নজিরবিহীন এই সাইবার হামলার পেছনের মূল হোতাদের ধরতে আন্তর্জাতিক তদন্তকারীরা কাজ শুরু করেছেন।

র‌্যানসমওয়্যার কী?

র‌্যানসমওয়্যার হল এক ধরনের ম্যালওয়্যার, যা কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর ব্যবহারকারীর কাজে বাধা দেয় এবং অনেক সময় হার্ড ড্রাইভের তথ্য একটি নির্দিষ্ট পাসওয়ার্ড দিয়ে এনক্রিপ্ট করে ফেলে। এর ফলে ব্যবহারকারী ওই কম্পিউটার ব্যবহার করতে গেলে তার কাছে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মুক্তিপণ বা অর্থ দাবি করা হয়।

এ ধরনের ম্যালওয়্যার কম্পিউটার ওয়ার্ম বা ট্রোজান ভাইরাসের মতো নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। জোসেফ পোপ নামের এক হ্যাকার ১৯৮৯ সালে প্রথমবারের মত র‌্যানসমওয়্যার তৈরি করেন যা ‘এইডস’ বা ‘পিসি সাইবর্গ’ নামে পরিচিতি পায়। ২০১৩ সালে র‌্যানসমওয়্যার ব্যবহার করে বিটকয়েন অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে অর্থ আদায়ের বেশ কিছু ঘটনার খবর আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে আসে।

 

অনলাইন/এইচটি 

প্রযুক্তি | আরো খবর